এমপিও বন্ধ হচ্ছে বসন্তপুরের গাবল‍া দাখিল মাদ্রাসার!

পাসের হার শূন্য, প্রয়োজনীয় অবকাঠামো ও প্রতিষ্ঠান পরিচালনার মতো শিক্ষক নিদিষ্ট সংখ্যক শিক্ষার্থী না থাকায় রাজবাড়ী সদর উপজেলার বসন্তপুর ইউনিয়নের গাবলা দাখিল মাদ্রাসা এমপিও (মান্থলি পেমেন্ট অর্ডার) বন্ধসহ পাঠদান ও একাডেমিক স্বীকৃতি বাতিলের তালিকায় নিয়েছে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (মাদ্রাসা) রওনক মাহমুদ বলেন, ‘যেসব প্রতিষ্ঠান বছরের পর বছর শূন্য পাস নিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে, প্রয়োজনীয় অবকাঠামো, শিক্ষক ও ছাত্র নেই, তাদের বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদফতর ও মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এমপিওভুক্ত মাদ্রাসার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে মন্ত্রণালয়। তবে নন-এমপিও প্রতিষ্ঠানগুলোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে শিক্ষা বোর্ড অধিদফতর।’

মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড সূত্রে জানা যায়, গত ১০ মে শিক্ষা বোর্ড ৯৬টি দাখিল মাদ্রাসাকে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দিয়েছে। এই নোটিশে বলা হয়েছে, ‘২০১৮ সালের দাখিল পাবলিক পরীক্ষায় পাসের হার শূন্য হওয়ায় মাদ্রাসাগুলোর প্রাথমিক পাঠদান স্থগিত, একাডেমিক স্বীকৃতি বাতিলসহ এডুকেশনাল ইনস্টিটিউশন আইডেন্টিফিকেশন নম্বর (ইআইআইএন) কেন বন্ধ করা হবে না, তা চিঠি পাওয়ার ২১ দিনের (কর্মদিবস) মধ্যে জানাতে হবে।’

মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের উপ-পরিদর্শক মো. হোসেন বলেন, ‘যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (দাখিল মাদ্রাসা) এমপিও আছে তাদের এবার কত শিক্ষার্থী পাবলিক পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল আর ২০১৯ সালে কতজন অংশ নেবে তা দেখবো। কারণ আমি দেখেছি, ২৮ জন পরীক্ষা দিয়ে একজনও পাস করেনি। এটা দৈবঘটনা নয়। তাই যদি হয়, তাহলে শিক্ষকের বেতন বন্ধ করা হবে অমানবিক। সেক্ষেত্রে আগামী বছর যদি ১৫ থেকে ২০ জন অংশ নেয় ও বেশিরভাগই পাস করে তাহলে আমরা বিবেচনা করা হতে পারে। এ বিষয়ে বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেবো। মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড সরাসরি প্রতিষ্ঠান বন্ধ করলে শিক্ষকরা আদালতের আশ্রয় নিতে পারেন। আমরা আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দিয়ে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো। মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান (একেএম সাইফুল্লাহ) দেশে ফিরলে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

নন-এমপিও মাদ্রাসা বন্ধ করার বিষয়ে এই উপ-পরিদর্শকের ভাষ্য, ‘যাদের এমপিও নেই, তারা ঢিলেঢালা। তবে কারা এমপিওভুক্ত, সেই তালিকা আমাদের কাছে নেই। মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদফতর থেকে আমাদেরকে তা জানানো হয় না। তাই কারা এমপিওভুক্ত আর কারা এমপিওভুক্ত নয়, তা আমরা নিশ্চিত নই। তবে প্রতিষ্ঠান বন্ধের বিষয়ে আইনগতভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যাদের এমপিও নেই তাদের বিষয়ে বোর্ড নমনীয়তা দেখালেও এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোকে ছাড় দেওয়ার সুযোগ নেই।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Captcha loading...