পাংশা-বালিয়াকান্দিতে ট্রেনের যাত্রা বিরতি দাবি

উদ্বোধনের পর থেকে ‘টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি, কালুখালী ও পাংশা উপজেলা হয়ে রাজশাহীতে আসা-যাওয়া করছে। তবে যাত্রাবিরতি না থাকায় শুরু থেকেই ওই ট্রেনের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি ও পাংশা উপজেলার যাত্রীরা। যাত্রীদের দাবি, ওই দুই উপজেলায় যেন দ্রুত ট্রেনের যাত্রাবিরতির ব্যবস্থা করা হয়।

গত শুক্রবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গোপালগঞ্জ ও রাজশাহীর মধ্যে যাতায়াতের জন্য টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস ট্রেনটি উদ্বোধন করেন। ট্রেনটি বালিয়াকান্দি উপজেলার চারটি এবং পাংশা উপজেলার দুটি স্টেশন পার হয়ে গন্তব্যে যায়, কিন্তু এ দুই উপজেলার কোথাও যাত্রাবিরতি দেয় না। তাই বালিয়াকান্দি ও পাংশার যাত্রীদের বাধ্য হয়ে কালুখালী জংশনে গিয়ে ট্রেনে উঠতে হয়। এতে যাত্রীদের ভোগান্তি আরো বাড়ছে।

বালিয়াকান্দির ক্রীড়া সংসদের আহ্বায়ক এস এম হেলাল খন্দকার বলেন, ‘বালিয়াকান্দি উপজেলাতে কালুখালী-টুঙ্গিপাড়া বাংলাদেশ রেলওয়ের চারটি এবং পাংশা উপজেলায় দুটি রেলস্টেশন রয়েছে। কিন্তু এই ছয়টির একটি স্টেশনেও টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস ট্রেনটি থামে না। অথচ এ অঞ্চলের অনেক শিক্ষার্থী রাজশাহী ও কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা করে এবং গুরুত্বপূর্ণ কাজে অনেকে নিয়মিত যাতায়াত করে। এর আগে সব আন্তনগর এক্সপ্রেস ট্রেন এসব স্টেশনে যাত্রাবিরতি দিয়েছে। টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস ট্রেনটি এ দুটি উপজেলায় যাত্রাবিরতি দিলে এলাকার মানুষ অনেক উপকৃত হবে।’ এ দাবি আদায়ের লক্ষ্যে তিনি গতকাল সোমবার সকালে রেলওয়ে (পশ্চিম) রাজশাহীর মহাব্যবস্থাপক বরাবর একটি আবেদনও পাঠিয়েছেন।

রাজবাড়ী রেলস্টেশন মাস্টার কামরুজ্জামান জানান, টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস ট্রেনটি দ্রুতগতির আন্তনগর এক্সপ্রেস ট্রেন। এর পরেও রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ মনে করলে বালিয়াকান্দি ও পাংশা উপজেলার রেলস্টেশনগুলোতে যাত্রাবিরতি দিতে পারে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Captcha loading...